টেক গ্রাউন্ড প্রতিনিধি :- আগামী বছরেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ব্যবসা শুরু করার পরিকল্পনা করছে শাওমি। সম্প্রতি এক সাক্ষৎকারে এই কথা জানিয়েছেন শাওমির ভাইস প্রেসিডেন্ট ওয়্যাং শিয়াং। তিনি বলেন, “পরের বছরে আমরা সেখানে কিছু করতে পারব বলে আশা প্রকাশ করছি।” শিয়াং বলেই ইতিমধ্যেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে টেলিকম অপারেটাদের সাথে কথা বলা শুরু করেছে শাওমি।

২০১৯ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পা রাখার পরিকল্পনা করছে শাওমি

নিজের দেশ চিনের স্মার্টফোন বাজারের একটি বড় অংশ দখল করে রেখেছে শাওমি। এর সাথেই পৃথিবীর অন্যতম বড় বাজার ভারতে এক নম্বর স্মার্টফোনের তকমা পেয়েছে কোম্পানিটি। এবার বিশ্বের অন্য প্রান্তে নিজেদের ছড়িয়ে দেওয়ার কাজ শুরু করল শাওমি। শাওমি স্মার্টফোনের অন্যতম প্রধান আকর্ষন কম দামে ফোনের ধাঁসু স্পেসিফিকেশান। এই মন্ত্রের উপরে ভর করেই চিন ও ভারতে বিশাল সাফল্যের মুখ দেখেছে কোম্পানিটি।

সংখ্যার দিক থেকে বিশ্বে তৃতীয় বৃহত্তম স্মার্টফোন বাজার মার্কিন যক্তরাষ্ট্র। আর তাই যে কোন ফোন প্রস্তুতকারী সংস্থার কাছে সেই দেশে ফোন বিক্রি করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। তবে সেই দেশে ফোন বিক্রি করতে কিছু বাধা অতিক্রম করা জরুরি।

এত বড় স্মার্টফোনের বাজারের পাশেই বিশ্বে সবথেকে এগিয়ে থাকা দেশগুলির মধ্যে অন্যতম মার্কিন যক্তরাষ্ট্র। Apple iPhones, Google Pixel লাইনআপ এবং Samsung Galaxy Note ও Galaxy S সিরিজের মতো প্রিমিয়াম ফোন সেই দেশে বেশি বিক্রি হয়। যদিও দেশের বিরাট এক অংশ বাজেট ফোন ব্যবহার করতেই পছন্দ করেন।

তবে মার্কিন যক্তরাষ্ট্রের কেরিয়ার কনট্র্যাক্ট শাওমির পথে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে। এর সাথেই মার্কিন যক্তরাষ্ট্র ও চিনের রাজনৈতিক সম্পর্ক এই ব্যবসায় বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। সম্প্রতি চিনের কোম্পানি ZTE ও Huawei কে মার্কিন যক্তরাষ্ট্রে ব্যবসায় নিষেধাজ্ঞা লাগানো হয়েছে।

সম্প্রতি চিনের অন্য এক জনপ্রিয় প্রিমিয়াম স্মার্টফোন কোম্পানি OnePlus মার্কিন যক্তরাষ্ট্রে ব্যবসা শুরু করে। সেই দেশে আনলকড স্মার্টফোন বিক্রি শুরু করেছে OnePlus। তবে মার্কিন যক্তরাষ্ট্রে শাওমিকে সফল হতে গেলে ব্যবসায় একটু হাটকে ভাবতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here